মানবকল্যাণের জন্য অসহিষ্ণুতা থেকে দূরে থাকতে হবে - বরিশালের খবর-Barishaler Khobor

বাংলাদেশ, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২১

মানবকল্যাণের জন্য অসহিষ্ণুতা থেকে দূরে থাকতে হবে - বরিশালের খবর-Barishaler Khobor

মানবকল্যাণের জন্য অসহিষ্ণুতা থেকে দূরে থাকতে হবে

প্রকাশ: ২৮ অক্টোবর, ২০২১ ১:১০ : অপরাহ্ণ

অনলাইন ডেস্ক : মানুষের জন্য ধর্ম বা জীবন বিধান। মানুষই প্রতিটি ধর্মের প্রধান প্রতিপাদ্য বিষয়। মানবসভ্যতার বিকাশে রয়েছে ধর্মের অবদান। প্রতিটি ধর্মের উদ্ভব ঘটেছে মানবকল্যাণের উদ্দেশ্য নিয়ে। মানুষের জাগতিক কল্যাণ কোন পথে সে গাইডলাইন ধর্ম মানুষকে দিয়েছে। জাগতিক জীবনের ওপারে যে অনন্ত জীবন সে জীবন শান্তিময় হবে কীভাবে সে শিক্ষাও দেয় ধর্মীয় বিধান।

ইসলামী বিশ্বাস অনুসারে আল্লাহ মানুষকে বানানোর পর জান্নাতে রেখেছিলেন। প্রথম মানব-মানবী হজরত আদম (আ.) ও হাওয়াকে গন্ধম খাওয়ার অপরাধে পৃথিবীতে পাঠানো হয় শাস্তি হিসেবে। পৃথিবীর জীবনে যারা মহান স্রষ্টার সন্তুষ্টি বিধানে সচেষ্ট থাকবে, যারা তাঁর নির্দেশ অনুযায়ী সুপথে চলবে তাদের আবার ফিরিয়ে নেওয়া হবে জান্নাতে। পক্ষান্তরে যারা বিপথগামী হবে, যারা সৃষ্টিকর্তার বাতলে দেওয়া আলোকিত পথের বদলে অন্ধকার পথের যাত্রী হবে তাদের ঠাঁই হবে জাহান্নামে।

পৃথিবীর মানুষ ছাড়া আল্লাহর প্রতিটি সৃষ্টি তাদের নিজস্ব নিয়মে চলে। একমাত্র মানুষের হেদায়েতের জন্য আল্লাহ নবী-রসুল পাঠিয়েছেন প্রতিটি যুগে। দুনিয়ার প্রথম মানব হজরত আদম (আ.)-এর মাধ্যমে শুরু হয়েছিল নবী-রসুলদের মিশন। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর মাধ্যমে দুনিয়ায় আল্লাহর রসুল পাঠানোর মিশনে সমাপ্তি টানা হয়েছে। মহানবী মুহাম্মদ (সা.)-কে আল্লাহ যে ঐশীগ্রন্থ দান করেছেন, তার উম্মতদের জন্য যে জীবনব্যবস্থা উপহার দিয়েছেন তা কিয়ামত পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

মহাকৌশলী ও পরাক্রমশালী আল্লাহ যুগে যুগে যেসব নবী-রসুল বা প্রেরিত পুরুষ পাঠিয়েছেন তাঁরা মানুষকে আল্লাহ-প্রদত্ত জীবনবিধান বাতলে দিয়েছেন। যা এখন নানা ধর্ম হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। ভাষার মতো ব্যাপক না হলেও পৃথিবীতে ধর্মের সংখ্যা কম নয়। ধর্ম, জাতিগোষ্ঠী ও ভাষার বৈচিত্র্য মহান আল্লাহর কুদরত। এক জাতি যাতে আরেক জাতিকে বুঝতে পারে সেজন্যই এ বৈচিত্র্য। দেশ বা রাষ্ট্রের জন্য যেমন সংবিধান রচিত হয়, তেমনি প্রতিটি ধর্মাবলম্বীর গাইডলাইন বা সংবিধান হিসেবে বিবেচিত হয় ঐশী ধর্মগ্রন্থগুলো।

পৃথিবীর প্রতিটি ধর্ম শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের কথা বলে। অসত্য অসুন্দর অকল্যাণের পথ এড়িয়ে চলার শিক্ষা দেয়। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি ধর্মের নামে যারা বাড়াবাড়ি করে তারা নিজেদের ধর্মের জন্যই অপমান বয়ে আনে। লজ্জা ডেকে আনে। সত্যিকারের ধার্মিক যারা তারা অন্য ধর্মের অনুসারীদের প্রতি অসহিষ্ণু হতে পারে না। অন্য ধর্মের উপাসনালয় বা কারোর ঘরবাড়িতে হামলা করতে পারে না। যারা এ ধরনের অপরাধ করে তারা ধার্মিক নয়। তারা মানুষ নামেরও কলঙ্ক।

মানবসভ্যতার সঙ্গে ধর্মের সম্পর্ক অতিঘনিষ্ঠ। প্রতিটি ধর্মকে একেকটি সভ্যতা বলেও অভিহিত করা যায়। আমাদের ধর্ম ইসলাম। ইসলাম শব্দের অর্থ শান্তি। শান্তির সমাজ প্রতিষ্ঠায় মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেছে ইসলাম। পৃথিবীতে যখন অশান্তি ও হানাহানি মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছিল তখন ইসলামের উদ্ভব। আরব ভূমিতে ১৪০০ বছর আগে যখন অনাচার, অত্যাচার, হানাহানি দানা বেঁধে উঠেছিল, সেই দুঃসময়ে মানবতার মূর্ত প্রতীক হিসেবে আবিভর্‚ত হন মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)।

আল্লাহ তাঁকে পাঠিয়েছেন তাঁর মনোনীত ধর্মের প্রচারক হিসেবে। সমাজ সংস্কারক ও সুসংবাদদাতা হিসেবে। ইসলাম নামের পরশপাথরের বদৌলতে নানা গোত্রে বিভক্ত, হানাহানিতে লিপ্ত আরবরা ঐক্যবদ্ধ জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে তারা দুনিয়ার পরিচালিকা শক্তিতে পরিণত হয়। যে আরব সমাজ ছিল অশ্লীলতা ও কুসংস্কারাচ্ছন্ন তারা আলোকিত জাতিতে পরিণত হয়। দুনিয়াজুড়ে মুসলমানরা হয়ে ওঠে নতুন সভ্যতার প্রবক্তা। সবার জন্য অনুকরণীয় ও অনুসরণীয়।

ধর্মীয় অনুশাসন থেকে বিচ্যুতির কারণেই আমরা আমাদের পথ হারিয়েছি। আলোকবর্তিকা জাতির চারদিকে এখন অন্ধকার। সুনীতির মূর্ত প্রতীক মুসলমানরা আদর্শহীনতার গ্লানিতে আবদ্ধ হয়ে পড়েছে। অসাম্প্রদায়িক চেতনাই ইসলামকে মানব জাতির আলোকবর্তিকা বানিয়েছিল। সে চেতনা থেকে সরে আসার কারণে দানা বেঁধে উঠছে উগ্রবাদের চেতনা। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মানবিকতা। সুস্থ চিন্তা ও সুস্থ মানসিকতা হারিয়ে যাচ্ছে সমাজ থেকে।

বিশ্বের মুসলিম দেশগুলো প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ। মানবসম্পদেও এগিয়ে। কিন্তু ইসলামী আদর্শের অনুসরণ কোথাও নেই বললেই চলে। আল কোরআন ও রসুল (সা.) -এর নির্দেশনার বরখেলাপ আমাদের ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক এমনকি রাষ্ট্রীয় জীবনকে দূষিত করছে। সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দান ইসলামের অলঙ্ঘনীয় বিধান।

একজনের অপরাধের জন্য আরেক জনকে শাস্তিদান ইসলাম কোনোভাবেই অনুমোদন করে না। কিন্তু পূজামন্ডপে কোরআন অবমাননার ঘটনা কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে যারা অসহিষ্ণুতা দেখিয়েছে তারা কোরআনপ্রেমী নয় বরং ইসলামের সুনাম কলুষিত করেছে। বিশ্ব সমাজে মুসলমান সম্পর্কে ভুল বার্তা পৌঁছে দিয়েছে। বাংলাদেশের সুনামও ক্ষুণ্ণ করেছে। তাদের বিচারের সম্মুখীন করতে হবে হত্যা, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের মতো জঘন্য অপরাধে জড়িত থাকায়।

ইসলাম অবমাননার জন্যও তাদের শাস্তি হওয়া উচিত। কারণ তারা দুনিয়ার সামনে মুসলমানদের হেয় করেছে।

লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।

সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

সকল নিউজ