সকালে পায়রা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী প্রস্তুতি সম্পন্ন - বরিশালের খবর-Barishaler Khobor

বাংলাদেশ, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২১

সকালে পায়রা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী প্রস্তুতি সম্পন্ন - বরিশালের খবর-Barishaler Khobor

সকালে পায়রা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী প্রস্তুতি সম্পন্ন

প্রকাশ: ২৩ অক্টোবর, ২০২১ ১০:৩৭ : অপরাহ্ণ

বরিশালের খবর ডেস্ক : দক্ষিনের সড়ক যোগাযোগের নতুন দ্বার উন্মোচিত হচ্ছে রবিবার (২৪ অক্টোবর)। স্বাধীনতার ৫০ বছর পর দেশের সর্ব দক্ষিনের কুয়াকাটা পর্যন্ত ফেরী বিহীন সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা চালুর মধ্য দিয়ে উন্মোচিত হচ্ছে নতুন দিগন্ত। বরিশাল-পটুয়াখালী সড়কের ২৬ তম কিলোমিটারে লেবুখালীর পায়রা নদীর উপর নব নির্মিত পায়রা সেতু রবিবার (২৪ অক্টোবর) সকাল ১০টায় গনভবন থেকে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পরপরই যানবাহন চলাচলের জন্য সেতুটি উন্মুক্ত করে দেবে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

সেতুর দুমকী প্রান্তে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক এমপি। এছাড়া বরিশাল সিটি মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ, বরিশাল ও পটুয়াখালী জেলার সংসদ সদস্যগন, সড়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আবদুল্লাহ আল হাসান চৌধুরী ও প্রধান প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর, শেখ হাসিনা সেনা নিবাসের জিওসি মেজর জেনারেল আবুল কালাম মো. জিয়াউর রহমান, বিভাগীয় কমিশনার মো. সাইফুল হাসান বাদল, ডিআইজি এসএম আক্তারুজ্জামান, পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান, সড়ক বিভাগ বরিশাল জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আবু হেনা মো. তারেক ইকবাল সহ সরকারী উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দুমকীপ্রান্তে উপস্থিত থাকবেন।

পায়রা সেতু প্রকল্পের পরিচালক মো. আবদুল হালিম বলেন, পটুয়াখালীর দুমকীপ্রান্তে সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু হবে সকাল ৯টায়। সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী ভার্চুয়ালি সংযুক্ত হয়ে সেতুর উদ্বোধন ঘোষনা করবেন। এ লক্ষ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি এসএম আক্তারুজ্জামান বলেন, সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ৪শ’ জন আমন্ত্রিত অতিথি দুমকীপ্রান্তে উপস্থিত থাকবেন। আনন্দঘন এবং কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সমাপ্ত করার যাবতীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা একাধিকবার সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন।

বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার মো. সাইফুল হাসান বাদল বলেন, রবিবার (২৪ অক্টোবর) দিনটি বরিশালবাসীর জন্য একটি স্মরনীয় দিন। এই দিনটির জন্য ৫০ বছর ধরে অপেক্ষায় ছিলেন দক্ষিনাঞ্চলের মানুষ। রবিবার (২৪ অক্টোবর) সেতুটি উদ্বোধন হয়ে গেলে মাওয়া এবং কাঠালবাড়ি থেকে দেশের সর্ব দক্ষিনের কুয়াকাটা পর্যন্ত ফেরী বিহীন সরাসরি সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হবে। এতে এই অঞ্চলে যানবাহন চলাচল বাড়বে। তড়ান্বিত হবে দক্ষিনের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন।

কুয়েত ফান্ড ফর আরব ইকোনমিক ডেভলপমেন্ট (কেএফএইডি) এবং ওপেক ফান্ড ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভলপমেন্টের (ওএফআইডি) যৌথ অর্থায়নে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের ২৬ তম কিলোমিটারে লেবুখালী পয়েন্টে পায়রা নদীর উপর সেতু নির্মানের কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালের ২৪ জুলাই। ১ হাজার ১শ’ ১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এক্সট্রা ডোজ ক্যাবল স্ট্রেট নকশায় নির্মিত সেতুর দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৪শ’ ৭০ মিটার এবং প্রস্থ ১৯.৭৬ মিটার। নদীর উভয়প্রান্তে এপ্রোচ সড়ক রয়েছে ১ হাজার ২শ’ ৬৮ মিটার। চীনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান লং জিয়ান রোড এন্ড ব্রীজ কোম্পানী লিমিটেড সেতুটি নির্মান করে।

পায়রা সেতুর নান্দনিকতা ইতিমধ্যে দৃস্টি কেড়েছে পর্যটকদের। দিনে এবং রাতের পায়রা সেতুর নৈসর্গিক দৃশ্য উপভোগ করতে প্রতিদিন ভীর করছে অনেক পর্যটক। নির্মান সম্পন্ন হলেও সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সবুজ সংকেত না পাওয়ায় সেতুটি যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করতে পারছিলো না সেতু কর্তৃপক্ষ। অবশেষে গত সোমবার সেতুটি উদ্বোধনের জন্য শনিবার (২৪ অক্টোবর) দিন ক্ষন চূড়ান্ত করে সরকার।

সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিদিন

সকল নিউজ