উজিরপুরে জিবনের নিরাপত্তা চেয়ে নিহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সংবাদ সম্মেলন - বরিশালের খবর-Barishaler Khobor

বাংলাদেশ, ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২১

উজিরপুরে জিবনের নিরাপত্তা চেয়ে নিহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সংবাদ সম্মেলন - বরিশালের খবর-Barishaler Khobor

উজিরপুরে জিবনের নিরাপত্তা চেয়ে নিহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশ: ২৩ অক্টোবর, ২০২১ ৯:১৫ : অপরাহ্ণ

উজিরপুর প্রতিনিধি : বরিশালের উজিরপুরের মুক্তিযোদ্ধা সহ তার বড় ছেলেকে হত্যার বিচারের দাবিতে সাংবদ সম্মেলন করেছে নিহতর পরিবার। শনিবার (২৩ অক্টোবর) উজিরপুর প্রেসক্লাবের সভা কক্ষে বেলা ১২ টায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহত মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে ছনিয়া আক্তার । লিখিত বক্তব্যে নিহতের পরিবার বলেন, উজিরপুর উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নের আটিপাড়া গ্রামে স্থানীয় সন্ত্রাসী হামলায় গত ২৯ জুলাই মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার হোসেন তালুকদার হাসপাতালে নেয়ার পথে নিহত হন এবং তার মৃত্যুর ১০ দিন পর বড় ছেলে বিপ্লব তালুকদার চিকিৎসাদিন অবস্থায় মৃত্যু বরন করে।

এ ঘটনায় নিহতর ছোট ছেলে জুয়েল তালুকদার বাদী হয়ে ৩২ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করে। বাকি আসামিদের গ্রেফতার না করায় সঠিক বিচার নিয়ে সংশয় রয়েছেন নিহত মুক্তিযোদ্ধার পরিবার। গ্রেফতার কৃতদের ভিতর জামিন পেয়েছে সাইদুল তালুকদার ও অন্যতম আসামি সাইদুল বেপারী। লিখিত বক্তব্যে তারা আরো বলেন, আসামিরা জামিনে এসে এবং আসামির আত্মীয় স্বজনরা নিহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের দুই মেয়েকে ধর্ষণ করে হত্যা করার হুমকি দেয়ায় গত ১৫ সেপ্টেম্বর উজিরপুর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেন।

সাধারণ ডায়রিতে হস্তিশুন্ড গ্রামের ৮ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ জাকারিয়া মোল্লা, তার ছেলে শিপন মোল্লা, সৈয়দ মোঃ লিটু কে আসামি করা হয়েছে। হত্যা মামলার অন্যতম আসামি সাইদুল বেপারীর আত্মীয় হওয়ায় ওই ইউপি সদস্য তার প্রভাব খাটিয়ে আসামি ও তাদের পরিবারের লোকজন নিহত পরিবারকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছে বলে অভিযোগ করেন নিহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবার। নিহত মুক্তিযোদ্ধার ছেলে বিপ্লব তালুকদারের ছোট মেয়ে জান্নাত কান্না জড়িত কন্ঠে তার পিতা ও দাদা বীর মুক্তিযোদ্ধা দেলোয়ার তালুকদারের হত্যার বিচার দাবী করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন নিহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মেয়ে ছনিয়া আক্তার, স্বর্না আক্তার, ছেলে জুয়েল তালুকদার, নিহত বিপ্লব তালুকদারের স্ত্রী রোজিনা বেগম, বড় মেয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থী কনক, ছোট মেয়ে জান্নাত, বাদী জুয়েল তালুকদারের স্ত্রী মুন্নি বেগম প্রমুখ। হত্যা মামলার আসামিরা হলেন, মোঃ নুরু ইসলাম সেপাই, জলিল সেপাই, সবুজ সরদার, সবুজ সেপাই, মোঃ আজিজুল সেপাই, হাফিজুল সেপাই, আকতার হোসেন, তালুকদার মোঃ রেজা, আকাব্বর সেপাই, নাইম সেপাই, আকলিমা বেগম, রাকিব সেপাই, মাইনুল সেপাই, সৈয়দ মিরাজ হোসেন, নুর মোহাম্মদ সেপাই, সৈয়দ নবিন, ইউনুছ সেপাই, শাহিন সেপাই, তুহিন সেপাই, আজগর আলী সেপাই, কালাম সেপাই, আমির সেপাই, নাসির সেপাই, সাইদুল বেপারী, আঃ জব্বার সরদার, ইউসুফ খান, দুলুফা বেগম, মনি খানম, রাশিদা বেগম, কমলা বেগম, শাহানাজ বেগম, শাহজাহান হাওলাদার। উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আলী আর্শাদ জানান, হত্যার ঘটনায় জড়িত ৫জন আসামি করে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এছাড়া ওই মামলার অন্যতম আসামি সাইদুল বেপারী উচ্চ আদালত থেকে জামিনে আছেন। বাদীর পরিবারকে কেউ যদি হুমকি দিয়ে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। বাদীর পরিবারের নিরাপত্তার জন্য পুলিশ সব সময় তাদের পাশে থাকবে। ওই মামলায় বাকি আসামিদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সকল নিউজ